ইভেন্ট

শহীদ নূর হোসেন দিবস

শহীদ নূর হোসেন দিবস। বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে শহীদ নূর হোসেন দিবস এক অনন্য অধ্যায়। এই দিনকে কেউ অস্বীকার করতে পারবে না। গণতন্ত্রে বিশ্বাসী প্রত্যেক রাজনৈতিক ব্যাক্তিই এই শহীদ নূর হোসেন দিবসকে শ্রদ্ধা ও সম্মানের সাথে স্বরণ করেন। আজকে আমরা শহীদ নুর হোসেন কে কেন্দ্র করে আমাদের পোস্ট উপস্থাপন করবো। আশা করি আপনাদের সঠিক ইতিহাস জানতে আমাদের পোস্ট উপকারে আসবে।

শহীদ নূর হোসেন দিবস কবে

শহীদ নূর হোসেন দিবস ১০ই নভেম্বর। নূর হোসেন বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে সবচেয়ে স্বরনীয় নাম। তিনি একজন সক্রিয় রাজনৈতিক কর্মী ছিলেন। যিনি ১৯৮৭ সালের ১০ই নভেম্বর তৎকালীন রাষ্ট্রপতি হোসেন মোহাম্মদ এরশাদ এর বিরুদ্ধে জিরো পয়েন্টে গণআন্দোলনে পুলিশের দ্বারা নিহত হন। পরে এই জিরো পয়েন্ট স্থানটিকে নূর হোসেন স্থান নামে নামকরণ করা হয়। নুর হোসেনের প্রতি বাংলাদেশের মানুষের আগ্রহের কারনে প্রতি বছর তা মৃত্যু বার্ষিকী ও শহীদ নূর হোসেন দিবস পালন করা হয়। নূর হোসেন ১৯৬১ সালে জন্মগ্রহণ করেন।

নূর হোসেন দিবস

নূর হোসেন দিবস। সময়টা ১৯৮৭ সাল, ক্ষমতায় স্বৈরশাসক এরশাদ। স্বৈরাচারি স্বাশক এর পতনের দাবীতে তখন উত্তাল সারা দেশ। রাজপথে নামে রাজনৈতিক দলগুলো। রাজনৈতিক দল্গুলোর সাথেই যুক্ত হয় ছাত্রজনতা। বিক্ষোভ তখন রুপম নেয় গণআন্দোলনে। মিছিলে মিছিলে প্রকম্ভিত ঢাকার আকাশ বাতাস। ১০ নভেম্বর সারা দেশে অবরোধ কর্মসূচিতে ঢল নামে জনতার। গণতন্ত্রের দাবীতে হাজারো প্রতিবাদী যুবকের সঙ্গে জীবন্ত পোষ্টার হয়ে রাজপথে নেমে এসেছিলো ২৬ বছর বয়সী তরুণ যুবলীগ কর্মী নূর হোসেন। পিরোজপুরের অটোরিকশা চালক বাবা মজিবর রহমান ও মা গৃহিণী মা মরিয়ম বিবির সন্তান নূর হোসেন আর্থিক অসচ্ছলতায় অষ্টম শ্রেণী পাশের পর হন মটর শ্রমিক। তবে তারুণ্য দিয়েই সক্রিয় ছিলেন রাজনীতিতে। তার বুকে পিঠে উত্‌কীর্ণ ছিলো,
“গণতন্ত্র মুক্তি পাক,
স্বৈরাচার নীপাত যাক”
এই জ্বলন্ত স্লোগান।গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে অকুতোভয় সেই যুবকের অগ্নিঝরা সেই স্লোগান সহ্য হয় নি তৎকালীন স্বৈরশাসকের। স্বৈরাচারের লেলিয়ে দেয়া বাহিনী নির্বিচারে গুলি চালিয়ে তার বুক ঝাঁজরা করে দেয়। গুলিতে আরো শহিদ হন যুবলীগ নেতা বাবুল ও কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরের খেতমজুর নেতা আমিনুল হুদা টিটু।
আরো দেখুনঃ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস

শহীদ নূর হোসেন দিবস আজ

শহীদ নূর হোসেন দিবস আজ। রাজধানির জিরো পয়েন্ট সেদিন রক্তাক্ত হয়েছিলো নূর হোসেনদের তাজা রক্তে। এই আন্দলোনের জোয়ারে ৯০ এর শেষ দিকে ভেসে যায় স্বৈরাচারের তক্ত কোষ। ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর পতন ঘটে স্বৈরাচার এরশাদের। বাংলাদেশ গনতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলনে ১০ নভেম্বর একটি অবিস্বরণীয় দিন। আজকের গনতান্ত্রিক বাংলাদেশ নূর হোসেনদের হাত ধরেই তৈরী। শ্রদ্ধা জানাই সকল নূর হোসেনদের।

শেষ কথাঃ
আশা করি আপনারা শহীদ নূর হোসেন দিবস সম্পর্কে প্রয়োজনীয় সব তথ্য পেয়ে গেছেন। এছাড়া বিভিন্ন দিবস সম্পর্কে জানতে আমাদের সাইটে চোখ রাখুন। আপনাদের মতামত কে কেন্দ্র করেই আমরা আমাদের পোস্ট সাজাই। তাই কোন মন্তব্য থাকলে বশ্যই ব্যাক্ত করুন।

এছাড়া আরো আছেঃ
৭ই মার্চের ভাষণের তাৎপর্য ব্যাখ্যা
মহান শহীদ দিবস কবে? ভাষা শহীদ দিবস পালনের ইতিহাস
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস

Show More

sumon

আমার নাম সুমন। আমি একজন ক্ষুদ্র কনটেন্ট রাইটার। আমার ব্লগিং করতে অনেক ভালো লাগে। আমি সবসময় চেষ্টা করি নতুন বিষয় সমূহ নিয়ে লিখতে। এবং সেখানে বিভিন্ন ধরনের তথ্য দিয়ে সবাইকে সাহায্য করে থাকি। আশা করি আমার লেখাগুলো আপনাদের অনেক ভালো লাগে।
Back to top button